ইউপি নির্বাচন নিয়ে ইসিতে পরস্পরবিরোধী বক্তব্য

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চলমান সহিংসতায় নির্বাচন কমিশনের কোনো দায় নেই, বরং এ সহিংসতার জন্য নির্বাচনে অংশ নেয়া প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরাই দায়ী।

‘কোন্দলের কারণে সহিংসতা হয়। জোর করে ভোট দিতে যায় বা কেন্দ্র দখল করতে যায়-তখনি ঘটনা ঘটে। নির্বাচন কমিশনের একেবারেই দায় নেই। প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরাই দায়ী,’ বলছিলেন সিইসি।

নূরুল হুদা ঢাকার একটি হোটেলে নির্বাচন কমিশন আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন। ভোটার তালিকায় পরিচয়হীন ব্যক্তিদের বাবা-মায়ের নাম লিপিবদ্ধকরণে জটিলতা নিরসন শীর্ষক এক কর্মশালায় যোগ দিয়েছিলেন তিনি।

নির্বাচনের সহিংসতা ছাড়াও চলমান নির্বাচনে ভোটারদের অংশ না দেয়া ও সহিংসতা নিয়ে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বুধবার যে বিবৃতি দিয়েছিলেন তা নিয়েও প্রতিক্রিয়া জানান।

উল্লেখ্য, চলতি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দেশের বিভিন্ন জায়গায় সহিংসতায় অন্তত ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

কমিশনার মাহবুব তালুকদার যা বলেছিলেন
বুধবার (৫ জানুয়ারি) দেয়া বিবৃতিতে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছিলেন, কতিপয় সংসদ সদস্য সরাসরি আচরণবিধি লঙ্ঘন করে চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কলুষিত করেছেন। কেবল চিঠি দেয়া ছাড়া তাদের সম্পর্কে আর কোনো ব্যবস্থা নেয়া যায়নি।

‘কেউ কেউ সে চিঠি উপেক্ষা করেছেন। এজন্য আইনের কঠোর প্রয়োগ অনিবার্য ছিল। যারা আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন তাদেরকে সামান্য অর্থদণ্ড প্রদান ব্যতীত অন্য কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।’

মাহবুব তালুকদারের অভিযোগ, সন্ত্রাস ও সংঘর্ষ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের অনুষঙ্গ হয়ে উঠেছে। তার মতে, এখন ভোটযুদ্ধে যুদ্ধ আছে, ভোট নেই। ইউপি নির্বাচনে উৎসবের বাদ্যের বদলে বিষাদের করুণ সুর বাজছে।

‘ভোটের আগে ও পরে ব্যালট পেপারের নিরাপত্তা বিধানে আমরা ব্যর্থ হয়েছি। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এর দায় এড়াতে পারবে বলে মনে হয় না।’

প্রতিক্রিয়ায় সিইসি যা বললেন
সিইসি বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারি) বলছেন, যে রক্তপাত হচ্ছে সেটি তাদের কাছে প্রত্যাশিত নয় তবে এর দায় নির্বাচন কমিশনের নয় বলেই মনে করেন তিনি।

তিনি বলেন, প্রশাসনের দুর্বলতা নেই। কারণ পুলিশ-বিজিবিও আক্রান্ত হয়েছে এবং তারা অনেক ধৈর্য নিয়ে কাজ করছে।

‘এর দায়িত্ব আমরা নিতে পারি না। কোন্দলের কারণে সহিংসতা হয়। নির্বাচন ব্যবস্থাপনার জন্য এটা হয় না। জোর করে ভোট দিতে যায় বা কেন্দ্র দখল করতে যায় তখন ঘটনা ঘটে। নির্বাচন কমিশন একেবারেই দায় নেই। প্রার্থী ও সমর্থকরাই দায়ী।’

কমিশনার মাহবুব তালুকদের অভিযোগকে মিথ্যা ও অপ্রাসঙ্গিক আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, ‘উনি একেকটা শব্দ ছেড়ে দেন মিডিয়ার জন্য। নির্বাচন কমিশনকে অপবাদ দেয়ার জন্য। ভোটার না থাকলে ৭৫ ভাগ ভোট কোথা থেকে আসে। লাইনে যারা দাঁড়িয়ে থাকে তারা কারা?’

সিইসির অভিযোগ, মাহবুব তালুকদার নিজের এজেন্ডা বাস্তবায়ন বা কমিশনকে হেয় করতেই এসব মন্তব্য করতে থাকেন।

তবে সিইসির এ প্রতিক্রিয়া নিয়ে নতুন কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*